বিশ্বকাপে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখার লড়াইয়ে ইংল্যান্ডের মুখোমুখি দক্ষিণ আফ্রিকা

england vs south africa

বড় চ্যালেঞ্জ নিয়ে নিজ মাঠে আগামীকাল থেকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু করছে দক্ষিণ আফ্রিকা। আগামী ওয়ানডে বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার আশা জিইয়ে রাখতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জিততেই হবে প্রোটিয়াদের। অন্য দিকে ইতোমধ্যেই সরাসরি বিশ্বকাপ নিশ্চিত করা ইংল্যান্ড  এই সিরিজ দিয়ে আগামী আসরের  প্রস্তুতি শুরু করবে ।
ব্লুমফন্টেইনে আগামীকাল বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় শুরু হবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার প্রথম ওয়ানডে।
ভারতে আগমী  অক্টোবর-নভেম্বরের ওয়ানডে বিশ্বকাপে সরাসরি খেলা ইতোমধ্যেই  নিশ্চিত করেছে সাতটি দল। অষ্টম ও শেষ দল হিসেবে বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার দৌঁড়ে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলংকা ও দক্ষিণ আফ্রিকা।
সুপার লিগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৪ ম্যাচে ৮৮, শ্রীলংকা ২১ ম্যাচে ৭৭ ও দক্ষিণ আফ্রিকার ১৬ ম্যাচে ৫৯ পয়েন্ট আছে। সুপার লিগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর কোন খেলা নেই। দক্ষিণ আফ্রিকার ৫টি ম্যাচ রয়েছে। তিনটি ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এবং দু’টি নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে। শ্রীলংকার ৩টি ম্যাচ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে।
বিশ্বকাপে সরাসরি খেলতে হলে পরের ৫ ম্যাচের মধ্যে অন্তত তিনটিতে জিততে হবে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। সাথে শ্রীলংকার ২ ম্যাচে হারতে হবে। তবে হাতে থাকা ৫ ম্যাচ জিতলে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলবে দক্ষিণ আফ্রিকা।
তবে নিউজিল্যান্ডকে যদি শ্রীলংকা হোয়াইটওয়াশ করে তাহলে বাকী ৫ ম্যাচই জিততে হবে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। কিউইদের বিপক্ষে শ্রীলংকা ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতলে, দক্ষিন আফ্রিকাকে ৪টি ম্যাচ জিতলেই হবে। আগামী ২৫ মার্চ থেকে নিউজিল্যান্ড সফরে তিনটি ওয়ানডে খেলবে লংকানরা।  
বিশ্বকাপের টিকিট নিশ্চিতের জন্য কঠিন সমীকরনকে মাথায় রেখে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ জয় ছাড়া অন্য কিছুই ভাবছে না দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়া অধিনায়ক তেম্বা বাভুমা বলেন, ‘আমাদের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ। বিশ্বকাপে সরাসরি খেলতে হলে আমাদের কঠিন সমীকরন মেলাতে হবে। বাকী ৫ ম্যাচই জিততেই চাই আমরা। এখন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ নিয়েই যত ভাবনা, প্রথম লক্ষ্য সিরিজ জয়।’
১৮ ম্যাচে ১২৫ পয়েন্ট নিয়ে সুপার লিগ পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ স্থানে ইংল্যান্ড। আগামী বিশ্বকাপে প্রস্তুতিটা এ সিরিজ দিয়েই করতে চায় ইংলিশরা। দলের অধিনায়ক জশ বাটলার বলেন, ‘আগামী বিশ্বকাপ নিয়ে পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছি আমরা। এই সিরিজ দিয়েই বিশ্বকাপের প্রস্তুতির মিশন শুরু করছি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ের জন্য নিজেদের সেরাটা উজার করে দিবে দল।’
এই সিরিজ দিয়ে ২০২১ সালের মার্চের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরতে মুখিয়ে আছেন ইংল্যান্ডের পেসার জোফরা আর্চার। ইনজুরির কারনে দীর্ঘদিন ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে পারেননি এই ডান-হাতি পেসার।
ওয়ানডেতে এখন পর্যন্ত ৬৬বার মুখোমুখি হয়েছে ইংল্যান্ড ও দক্ষিন আফ্রিকা। এরমধ্যে ইংল্যান্ড জিতেছে ২৯টিতে, দক্ষিণ আফ্রিকার জয় ৩১টিতে। ১টি ম্যাচ টাই ও ৫টি পরিত্যক্ত হয়। গেল বছরের জুলাইয়ে সর্বশেষ ওয়ানডে সিরিজে মুখোমুখি হয় ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা। ইংল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠিত  তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটি ১-১ সমতায় শেষ হয়েছিলো।
দক্ষিণ আফ্রিকা দল : তেম্বা বাভুমা (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি কক, রেজা হেনড্রিকস, মার্কো জানসেন, হেনরিচ ক্লাসেন (উইকেটরক্ষক), সিসান্দা মাগালা, কেশব মহারাজ, জানেমান মালান, আইডেন মার্করাম, ডেভিড মিলার, লুঙ্গি এনগিডি, এনরিচ নর্টি, ওয়েনন পারনেল, কাগিসো রাবাদা, তাবরাইজ শামসি ও রাসি ভ্যান ডার ডুসেন।
ইংল্যান্ড দল : জশ বাটলার (অধিনায়ক), মঈন আলি, জোফরা আর্চার, হ্যারি ব্রুক, স্যাম কারান, বেন ডাকেট, ডেভিড মালান, আদিল রশিদ, জেসন রয়, ফিল সল্ট, ওলি স্টোন, রিচি টপলি, ডেভিড উইলি ও ক্রিস ওকস।

মন্তব্য করুন